Submit your Article

    লেখা পাঠাবার ইমেইল:

parisvisionnews@yahoo.com

Bangla version

Member login

Notice Board

দৃষ্টি আকর্ষণ
 লেখা আহবান 
আপনার প্রিয় প্যারিস ভিশন নিউজ ডটকমের জন্য লেখা পাঠাবার আহবান খবর,গল্প,প্রবন্ধ,কবিতা,ভ্রমন কাহিনী ইত্যাদি আজ ই পাঠিয়ে দিন
Email:parisvisionnews@yahoo.com

 

বাংলাদেশ সংবাদ

নির্বাচন কমিশনের অনিয়মের ফলে বাংলাদেশে সহায়তা কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দিল ইইউ

PDFPrintE-mail

বাংলাদেশ সংবাদ - Political news

Friday, 23 September 2016 15:10

নির্বাচন কমিশনের অনিয়মের ফলে বাংলাদেশে সহায়তা কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দিল ইইউ

eu-flag

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সহায়তা কার্যক্রম স্থগিত করেছে। পরপর তিনটি নির্বাচন (সর্বশেষ ২০১৫ সালের এপ্রিলে ঢাকা ও চট্টগ্রামের সিটি করপোরেশনের নির্বাচন-যাতে ইইউর পর্যবেক্ষকরা ব্যাপক অনিয়ম খুঁজে পেয়েছেন) পরিচালনায় নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতার জন্য ইইউ অন্য দাতাদের পাশাপাশি বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সহায়তা কার্যক্রম স্থগিত করেছে।
বাংলাদেশে ২০১৫ সালে গণতান্ত্রিক চর্চার ক্ষেত্র সংকুচিত হয়েছে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, গুম এবং বিরোধী ও মানবাধিকারকর্মীদের কার্যক্রমে বিধিনিষেধসহ নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারের ক্রমেই অবনতি হয়েছে। সাংবাদিক ও সম্পাদকদের ভয়-ভীতি দেখানোর ঘটনা বেড়েছে। আবার কিছু শীর্ষস্থানীয় দৈনিকের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা ক্ষুণœ করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদনে মঙ্গলবার এই অভিমত দেওয়া হয়েছে। ‘হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি: ইইউ অ্যানুয়াল রিপোর্ট ২০১৫’ শীর্ষক এই প্রতিবেদন গতকাল গৃহীত হয়েছে।
ইইউর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের ক্ষেত্রে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অগ্রাধিকারের মধ্যে রয়েছে বিচার বিভাগের সংস্কার; মৃত্যুদণ্ড বিলোপ; পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন; রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তা; সংখ্যালঘু, মানবাধিকার, নারী ও শিশু অধিকার কর্মীদের অধিকার; নাগরিক সমাজের প্রতি সমর্থন ও শ্রম অধিকার বাস্তবায়ন।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর হামলা ২০১৫ সালে কয়েক গুণ বেড়েছে। চারজন ‘নাস্তিক’ ব্লগার এবং একজন প্রকাশকের হত্যায় প্রমাণিত হয়েছে, বাংলাদেশ ধর্মীয় জঙ্গিবাদ উত্থানের ঝুঁকি থেকে মুক্ত নয়। দুই বিদেশি নাগরিকের হত্যাকাণ্ড নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতির বিষয়টি তুলে ধরেছে।
২০১৫ সালের ফেব্র“য়ারিতে সুশাসন, মানবাধিকার ও অভিবাসন-বিষয়ক উপ-গ্রুপ এবং নভেম্বরে যৌথ কমিশনের বৈঠকে মানবাধিকার ও গণতন্ত্র বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত রেখেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। এসব বৈঠকে মৌলিক গণতান্ত্রিক অধিকার, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, গুম, বিরোধী ও মানবাধিকারকর্মীদের কার্যক্রমে বিধিনিষেধ, সংখ্যালঘু ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তাগুলোর পরিস্থিতি এবং নারী ও শিশুদের ওপর সহিংসতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজনৈতিক সংলাপ, জনকূটনীতি, উন্নয়ন সহায়তা ও কর্মসূচি, বাংলাদেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ও মানবাধিকারকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করে কিংবা মাঠপর্যায়ে ঘুরে ইইউ এবং এর সদস্যদেশগুলো নিয়মিতভাবে মানবাধিকার পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে। ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ইইউর মিশনপ্রধানেরা রাজনৈতিক সংঘাত এবং এর ফলে হতাহতের বিষয়ে অনুতাপ জানিয়েছেন।
ব্লগারদের হত্যার ব্যাপারে ইইউ জোরালো ভাষায় নিন্দা জানিয়ে কয়েকবার বিবৃতি দিয়েছে এবং যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে হত্যাকারীদের বিচারের জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। ২০১৫ সালের ২৬ নভেম্বর মত প্রকাশের স্বাধীনতার বিষয়ে ইউরোপীয় পার্লামেন্টে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। ওই প্রস্তাবে অসাম্প্রদায়িক লেখক, ব্লগার, ধর্মীয় সংখ্যালঘু, বিদেশি সাহায্যকর্মীদের ওপর হামলার নিন্দা জানানো হয়েছে এবং অবিলম্বে সব ধরনের সহিংসতা, হয়রানি, ভীতি প্রদর্শন ও সেন্সরশিপ বন্ধের জন্য বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের প্রতি আবেদন জানানো হয়েছে।

Bangladesh
The main EU priorities in the area of human rights and democracy remained judicial reform, a death
penalty moratorium, implementation of the Chittagong Hill Tracts Peace Accord, support for
Rohingyas, the rights of persons belonging to minorities, human rights defenders, women’s and
children’s rights, support for civil society and implementation of labour rights.
In 2015, Bangladesh witnessed a diminishing democratic space and a steady deterioration in civil
and political rights, including extrajudicial killings, enforced disappearances and restrictive action
against opposition and human rights activists. Intimidation of journalists and editors also increased,
while measures were taken to undermine the economic viability of some prominent newspapers.
Attacks on freedom of expression multiplied in 2015. The killings of four ‘atheist’ bloggers and one
publisher in 2015 proved that the country was not immune to the threat of rising religious
extremism. The deteriorating security situation was underlined by the killings of two foreign
citizens. On the positive side, some progress was achieved on social and economic rights.
The EU continued its human rights and democracy dialogue with Bangladesh at the meetings of the
Sub-group on Good Governance, Human Rights and Migration in February 2015 and the EU-
Bangladesh Joint Commission in November 2015. The main issues discussed were the protection of
fundamental democratic rights, extrajudicial killings, enforced disappearances, restrictive action
against opposition and human rights activists, the situation of minorities and indigenous people and
violence against women and children.
The EU and its Member States regularly followed the human rights situation in Bangladesh through
political dialogue, public diplomacy, development assistance and projects, engaging with
Bangladeshi representatives, meeting human rights activists or organising field visits to get
acquainted with the situation on the spot. The EU Heads of Mission issued several statements on
incidents of violence. On 15 January 2015, the Heads of Mission also met with the Foreign Minister
to express their regret at the political violence and the resultant casualties.
The EU strongly condemned the murders of bloggers in several statements and called on the
authorities to undertake proper investigations in order to bring the perpetrators to justice. The
European Parliament adopted a resolution on 26 November 2015 on freedom of expression in
Bangladesh, condemning the attacks against secularist writers, bloggers, religious minorities and
foreign aid workers and calling on the Bangladeshi authorities to bring an immediate end to all acts
of violence, harassment, intimidation and censorship. On 29 September 2015 the HR/VP’s
spokesperson issued a statement condemning the killing of an Italian aid worker and calling for
As regards the death penalty Bangladesh continued executions and passing death sentences. On 9
April 2015, following the confirmation by the Bangladeshi Supreme Court of the death sentence in
the case of Muhammad Kamaruzzaman, the HR/VP’s spokesperson issued a statement condemning
the death penalty. The lack of fairness and transparency of the proceedings of the Bangladeshi
International Crimes Tribunal was criticised by legal experts and by the chair of the European
Parliament Delegation for relations with the countries of South Asia.
In response to the poor performance of the Election Commission in three consecutive elections
(most recently, the April 2015 city corporation elections in Dhaka and Chittagong were marred by
many irregularities witnessed by EU ‘watchers’), and pursuant to Article 1 of the 2001 Cooperation
Agreement under which respect for human rights and democratic principles is an essential element,
the EU decided together with other donors to terminate a programme supporting the Election
Commission of Bangladesh.
Cooperation under the framework of the Sustainability Compact continued in 2015 with the aim of
improving labour rights, occupational health and safety conditions in the garment industry in
Bangladesh. The long-awaited implementing rules for the revised Bangladesh Labour Act were
published in September 2015 and factory inspections in the ready-made garment sector continued at
a steady pace. These issues were discussed at a conference entitled ‘Remembering Rana Plaza: The
road ahead’ at the European Parliament in April 2015. At the 104th International Labour Conference,
the EU contributed to the examination of compliance of Bangladesh with the ILO Freedom of
Association Convention 87.
To advance implementation of the Chittagong Hill Tracts (CHT) Peace Accord the EU financed two
projects: the CHT Development Facility project, which received EUR 24 million, and a project to
strengthen basic education in the CHT.
The EU continued its dialogue with civil society organisations and human rights defenders.
Continuous support was provided to human rights NGOs through the European Instrument for
Around 35 projects were ongoing in 2015, addressing issues ranging from the rights of children,
women and persons with disabilities, minorities and indigenous peoples’ rights and labour rights to
empowering civil society, at a total cost of EUR 210 million. Seven new projects focusing on civil
society were selected in 2015 to receive EUR 6.8 million. The strengthening of democratic
governance is also one of the priorities of the Multiannual Indicative Programme for 2014-202

 

ইসিকে বিতর্কিত করবেন না:সৈয়দ আশরাফ

PDFPrintE-mail

বাংলাদেশ সংবাদ - Political news

Friday, 23 September 2016 09:24

ইসিকে বিতর্কিত করবেন না

নির্বাচন কমিশনকে বিতর্কিত না করতে বিএনপিসহ সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ  
সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন, সুপ্রিম কোর্ট, হাইকোর্টসহ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা ঠিক নয়। এগুলো সভ্যতার স্তম্ভ। আসুন, আমরা এই প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্মান দেখাই। গতকাল ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দলের এক  বৈঠক শেষে সংবাদ
সম্মেলনে  সৈয়দ আশরাফ এ কথা বলেন। জাতিসংঘ অধিবেশন শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফেরা উপলক্ষে ২৬শে সেপ্টেম্বর গণঅভ্যর্থনা কর্মসূচি সফল করতে এ  বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নির্বাচন কমিশন নিয়োগ দেন রাষ্ট্রপতি। তিনি সবার সঙ্গে আলোচনা করে নিয়োগ দেবেন। তিনি বলেন, ‘আমরা সবকিছুকেই বিতর্কিত করি। তাহলে আমরা যাবো কোথায়। মাথা ঠেকানোর জায়গা কোথায়। এভাবে বিতর্কিত করা হলে সভ্যতা থাকবে না। আইন থাকবে না। তাহলে কী গণতন্ত্র থাকবে? সৈয়দ আশরাফ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ থেকে দুটি পুরস্কার পেয়েছেন। একটি নারীদের অধিকার রক্ষায়, অন্যটি পরিবর্তনের জন্য। প্রধানমন্ত্রী সব সময় নারী-শিশুদের অধিকারের বিষয়ে সোচ্চার থাকেন। আগে বাংলাদেশের মতো দেশ?গুলোর কোনো মুখপাত্র ছিল না। শেখ হাসিনা এখন এমন দেশগুলোর প্রতিনিধি হিসেবে কথা বলেন। তিনি যা সত্য, তাই বলেন। তিনি ভয়হীন। প্রধানমন্ত্রী আন্তর্জাতিক সমপ্রদায়ের কাছে কোনো দাবি তুলে ধরলে তা বাতিল হয়ে যায় না। কেননা, তিনি যুক্তি দিয়ে দাবি তোলেন। ফলে অন্য দেশগুলো তাতে সমর্থন দেন। মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরো ১০ বছর ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে। শেখ হাসিনা বাংলাদেশের মানুষের জন্য, আমাদের জন্য নিজের আরাম-আয়েশ, ঘুম বাদ দিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বাংলাদেশের মতো দেশগুলোর প্রতিনিধি হিসেবে জাতিসংঘে কাজ করছেন। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ওই যৌথসভায় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, নারায়ণগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং দলীয় সংসদ সদস্যরা। তিনি  বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাতে ব্যাপক জনসমাবেশ ঘটাতে হবে। অতীতে আমরা ১/১১-এর সময় শেখ হাসিনা যখন দেশে ফেরেন তখন সব ভয়ভীতি উপেক্ষা করে ব্যাপক জনসমাগম ঘটিয়েছিলাম। এবারও আমরা তার চেয়ে বেশি জনসমাগম ঘটাবো।

 
 

সেনাবাহিনী প্রধানের জন্য আওয়ামী লীগের সংবর্ধনার আয়োজন !

PDFPrintE-mail

বাংলাদেশ সংবাদ - Political news

Friday, 23 September 2016 08:53

সেনাবাহিনী প্রধানের জন্য আওয়ামী লীগের সংবর্ধনার আয়োজন !

 
 

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ পূণর্বহাল : বরখাস্তাদেশ স্থগিত

PDFPrintE-mail

বাংলাদেশ সংবাদ - Political news

Last Updated on Wednesday, 21 September 2016 10:56 Wednesday, 21 September 2016 10:47

সাইফুল্লাহ পূণর্বহাল : বরখাস্তাদেশ স্থগিত

saifullah

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ পূণর্বহাল:হাইকোর্টে বরখাস্তাদেশ স্থগিত

 ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ আল হোসাইনের উপর আরোপিত বরখাস্তাদেশ স্থগিত করেছেন মহামান্য হাইকোর্ট। গত ৮ সেপ্টেম্বর এক আদেশে মহামান্য হাইকোর্ট সাইফুল্লাহ আল হোসাইনের উপর আরোপিত সাময়িক বরখাস্তাদেশ ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে দেন। হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি জুবায়ের আহমদ চৌধুরী ও মো: আতাউর রহমান খান সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ উপরোক্ত আদেশ দেন। ফলে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এর দায়িত্ব পালনে সাইফল্লাহ আল হোসাইনের আর কোন প্রতিবন্ধকতা নেই।
গত ৮ সেপ্টেম্বর সাইফুল্লাহ আল হোসাইন মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে রীট পিটিশন (নং-১২০৩৩/২০১৬) করেন। রীট পিটিশনে সাইফুল্লাহ আল হোসাইন, ১৯৯৮ সালের উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন (২০১১ দ্বারা সংশোধিত) এর ১৩ খ (১) ধারা অনুসারে তার বিরুদ্ধে সাময়িক বরখাস্তাদেশ চ্যালেঞ্জ করেন। রীট পিটিশনে সচিব স্থানীয় সরকার পল্লীউন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়, সচিব নির্বাচন কমিশন, সিনিয়র সহকারী সচিব স্থানীয় সরকার পল্লীউন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়, বিভাগীয় কমিশনার সিলেট ও জেলা প্রশাসক সিলেট কে বিবাদী করা হয়।
মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের গঠিত বেঞ্চ ঐদিনই শুনানী করেন। শুনানী শেষে হাইকোর্টের বেঞ্চ রুল জারী করেন। রুলে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ আল হোসাইনের উপর জারিকৃত সাময়িক বরখাস্তাদেশ স্থগিত করা হয়। একই সাথে , এই বরখাস্তাদেশ কেন অবৈধ নয় এই মর্মে জবাব দিতে বিবাদীদের নির্দেশ প্রদান করা হয়।
প্রসঙ্গত: গত ১০ এপ্রিল স্থানীয় সরকার পল্লীউন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপনে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ আল হোসাইনেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন।
উল্লেখ্য, সাইফুল্লাহ আল হোসাইন ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সততা ও কর্মনিষ্ঠায় এলাকার আবালবৃদ্ধবনিতার কাছে অতিপ্রিয় নেতা হিসেবে খ্যাতি লাভ করেন।(প্রভাতেেবলা )

 

পাকিস্তান সীমান্তের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে ভারত

PDFPrintE-mail

বাংলাদেশ সংবাদ - Political news

Wednesday, 21 September 2016 10:15

পাকিস্তান সীমান্তের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে ভারত

 
 

Page 1 of 638

Historic words of 2011

Facebook like Icon